islamkingdomfaceBook islamkingdomtwitter islamkingdomyoutube


ফলে সুপারিশকারীদের সুপারিশ তাদের কোনো কাজে আসবে না।

তাদের তবে কি হয়েছে যে তারা অনুশাসন থেকে ফিরে চলে যায়,

যেন তারা ভীত-ত্রস্ত গাধার দল,

পালিয়ে যাচ্ছে সিংহের থেকে?

বস্তুত তাদের মধ্যের প্রত্যেকটি লোকই চায় যে তাকে যেন দেওয়া হয় খোলামেলা কাগজের তাড়া।

কখনো না। তারা কিন্ত পরকালের ভয় করে না।

কক্ষনো না! এটি নিশ্চয়ই এক অনুশাসন।

সুতরাং যে কেউ চায় সে এটি স্মরণ করুক।

আর তারা মনোনিবেশ করবে না যদি না আল্লাহ্ ইচ্ছা করেন। তিনিই ভয়ভক্তি করার যোগ্য পাত্র এবং তিনিই পরিত্রাণের যথার্থ অধিকারী।

না, আমি শপথ করছি কিয়ামতের দিনের।

আর না, আমি শপথ করছি আ‌ত্মসমালোচনাপরায়ণ আ‌ত্মার।

মানুষ কি মনে করে যে আমরা কখনো তার হাড়গোড় একত্রিত করব না?

হাঁ, আমরা তার আঙুলগুলো পর্যন্ত পুনর্বিন্যস্ত করতে সক্ষম।

তবুও মানুষ চায় যা তার সামনে রয়েছে তা অস্বীকার করতে।

সে প্রশ্ন করে -- ''কখন কিয়ামতের দিন আসবে?’’

কিন্ত যখন দৃষ্টি দিশাহারা হয়ে যাবে,

আর চন্দ্র হবে অন্ধকারাচ্ছন্ন,

আর সূর্য ও চন্দ্রকে একত্রিত করা হবে,

মানুষ সেইদিন বলবে -- ''কোথায় পালানোর স্থান?’’

কিছুতেই না, কোনো আশ্রয়স্থল নেই।

সেদিন ঠাই হবে কেবল তোমার প্রভুর নিকটেই।

মানুষকে সেইদিন জানানো হবে কী সে আগবাড়িয়েছে এবং সে ফেলে রেখেছে।

বস্তুত মানুষ তার নিজের সত্ত্বা সন্বন্ধে চক্ষুষ্মান,

যদিও সে তার অজুহাত দেখায়।

এর দ্বারা তোমার জিহবা নাড়াচাড়া করো না একে ত্বরান্বিত করতে।

নিঃসন্দেহ আমাদের উপরেই রয়েছে এর সংগ্রহের ও এর পাঠ করানোর দায়িত্ব।

সুতরাং যখন আমরা তা পাঠ করি তখন তুমি তার পঠন অনুসরণ করো,

তারপর নিশ্চয় আমাদেরই উপরে রয়েছে এর ব্যাখ্যাকরণ।